StudyTechnology

Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য আলোচনা

Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য
Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

বন্ধুরা,

আজকে Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য তুলে ধরবো। যা তোমাদের প্রতিনিয়ত কাজে লাগে। চলো তাহলে শুরু করা যাক।

কম্পিউটার সিস্টেমে ব্যবহৃত প্রতিটি বর্ণ, অঙ্ক, সংখ্যা, প্রতীক বা বিশেষ চিহ্নকে আলাদাভাবে CPU-কে বোঝানোর জন্য ব্যবহৃত বাইনারি বিটের (0 বা 1) অদ্বিতীয় (Unique) সংকেতকে কোড (code) বলা হয়।

Encoding: বর্ণ, অঙ্ক, প্রতীক ও চিহ্নকে বাইনারিতে রূপান্তরের প্রক্রিয়া।

Decoding: বাইনারি সংখ্যাকে আবার বর্ণ, অঙ্ক, প্রতীক ও চিহ্নে রূপান্তরের প্রক্রিয়া।  কম্পিউটার এ কোডের সাহায্যে ডেটা প্রক্রিয়াকরণ সম্পন্ন করার পর প্রাপ্ত ফলাফলকে মানুষের বোধগম্য করার লক্ষ্যে আবার বর্ণ, অঙ্ক, সংখ্যা ও বিশেষ চিহ্নে রূপান্তর করে। রূপান্তরের এ প্রক্রিয়াকে Decoding বলে।

-প্রয়োগের ক্ষেত্রের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন ধরনের কোডের উদ্ভব হয়েছে। যেমন:

 বিসিডি (BCD) কোড

আলফানিউমেরিক কোড (Alphanumeric code)

ইবিসিডিক (EBCDIC) কোড

অ্যাসকি (ASCII) কোড

ইউনিকোড (Unicode) ইত্যাদি।

BCD Code

পূর্ণরূপ হলো Binary Coded Decimal

BCD was used by early computers.

See also  এস এস সি পরিক্ষার রুটিন ২০২২। ssc exam routine 2022

ব্যবহৃত হয় দশমিক সংখ্যাকে বাইনারি সংখ্যায় রুপান্তরের জন্য।

এটি মূলত ৪ (চার) বিটের কোড।

BCD কোডে বিটের সংখ্যা ৪ টি।

এর মাধ্যমে ১৬ টি অদ্বিতীয় চিহ্ন নির্দেশ করা যায়।

BCD ৮৪২১ কোড বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য এবং বহুল ব্যবহৃত।

ASCII Code (Alphanumeric code)

পূর্ণরূপ American Standard Code for Inofrmation Interchange

এর প্রকাশক আমেরিকান ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইন্সস্টিটিউট (ANSI)।

আধুনিক কম্পিউটারে বহুল ব্যবহৃত কোড।

মিনি ও মাইক্রোকম্পিউটারে এ কোডের বহুল প্রচলন রয়েছে।

এটি মূলত ৭ (সাত) বা ৮ (আট) বিট আলফা নিউমেরিক কোড।

এর মাধ্যমে ১২৮ টি (বা ২৫৬ টি) অদ্বিতীয় চিহ্ন নির্দেশ করা যায়।

প্যারিটি বিট মূলত ভুল নির্নয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়।

EBCDIC Code (Alphanumeric code)

পূর্ণরুপ Extended Binary Coded Decimal Information Code

আইবিএম কোম্পানি কর্তৃক উদ্ভাবিত।

একটি ৮ বিট আলফা নিউমেরিক কোড।

দ্বারা প্রকাশ করা যায় ২৫৬ টি অদ্বিতীয় অঙ্ক, অক্ষর এবং চিহ্ন।

প্রাথমিকভাবে আইবিএম মেইনফ্রেম কম্পিউটারে (IBM ৩৬০ এবং ৩৭০ সিরিজের) কম্পিউটারে ব্যবহৃত হতো।

See also  ফেসবুক থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

UNICODE (Alphanumeric code)

পূর্ণরুপ Universal Code

উদ্ভাবন করে যৌথভাবে (Apple+Xerox) Corporation ১৯৯১ সালে।

ব্যবহৃত হয় বিশ্বের ছোট বড় সকল ভাষার বর্ণ ও চিহ্নকে কম্পিউটারের কোডভুক্ত করার জন্য।

The length of Unicode character is 16 bits (2 byte).

একটি ২ বাইট বা ১৬ বিট আলফা নিউমেরিক কোড।

এর মাধ্যমে সম্ভাব্য ৬৫,৫৩৬টি অদ্বিতীয় চিহ্নকে নির্দিষ্ট করা যায়।

ফলে যেসব ভাষাকে কোডভুক্ত করার জন্য ৮ বিট অপর্যাপ্ত ছিল (যেমন- চায়নিজ, কোরিয়ান, জাপানিজ ইত্যাদি) সেসব ভাষার সকল চিহ্নকে সহজেই কোডভুক্ত করা সহজতর হয়েছে। বর্তমানে এ কোডের প্রচলন শুরু হয়েছে।

বিভিন্ন উপস্থাপনায় ইউনিকোড ৮, ১৬ অথবা ৩২ বিট ক্যারেক্টার বেজ ব্যবহার করে।

বাংলা ভাষা Unicode ভুক্ত হয়েছে Unicode consortium-এর সদস্য হয়ে।

আজ এ পর্যন্ত Computer Code বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্যনিয়ে।

আরও পড়ুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button