Others

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন ফি এবং অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন ফি এবং অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাইঃ জন্ম নিবন্ধন অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ের মধ্যে একটি। জন্মনিবন্ধন গুলোকে অনেক আগে ইস্যু করার কারনে প্রায় বেশিরভাগ মানুষের জন্মনিবন্ধন জনিত বিভিন্ন সমস্যা আজকাল লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে, বর্তমান আধুনিক যুগে জন্ম নিবন্ধনে দেয়া নাম কে ইংরেজি ভাষায় সংস্করন এর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

জন্মনিবন্ধন অনেক আগে করার কারনে অনেক সময়ে আমাদের সঠিক বয়স দেয়া হয়নি। পরবর্তী সময়ে এগুলো আমরা এনালগ সিস্টেমে পরিবর্তন করে দিয়েছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বর্তমানে সকল কিছু অনলাইন ভিত্তিক শুরু করা হয়েছে। জন্ম নিন্ধন এর যাবতীয় সকল কিছু অনলাইন এর মাধ্যমে সংশোধন ও পরিমার্জন করতে হয়।

আজকের পোষ্টে আমরা জানবো, কিভাবে আপনার সহজেই মোবাইল ফোন কিংবা পিসি দিয়ে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিতে পারবেন। এসব কাজ গুলো করতে ইউনিয়ন পরিষদের প্রচুর ভিড় সামলাতে হয়। কিন্তু যদি সেটা ঘরে বসেই করা যায় তবে সেটা অবশ্যই আপনার সময় কে বাচিয়ে দিতে পারবে।

জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনুসন্ধান করুন

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

নিবন্ধক কার্যালয়ের জন্য আপনার জন্ম স্থান বা স্থায়ী ঠিকানার বিভাগ, জেলা, প্রভৃতি ধাপ পার হয়ে ওয়ার্ড পর্যন্ত নির্বাচন করতে হবে। অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের আবেদন ফরম প্রথমে বাংলায় (ইউনিকোড) ও পরবর্তীতে ইংরেজিতে পূরণের পর প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করে সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করুন। সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করলেই আবেদন পত্রটি সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক কার্যালয়ে স্থানান্তিরত হয়ে যাবে, আবেদনকারীর আর কোন সংশোধনের সুযোগ থাকবে না। অতঃপর পরবর্তী ধাপে প্রিন্ট বাটনে ক্লিক করলে আবেদন পত্রের মুদ্রিত কপি পাবেন। সনদের জন্য ১৫ দিনের মধ্যে উক্ত আবেদন পত্রে নির্দেশিত প্রত্যয়ন সংগ্রহ করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ নিবন্ধক অফিসে যোগাযোগ করুন।

জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনার কোন ঠিকানার অফিস থেকে সংগ্রহ করতে চান *
জন্মস্থান স্থায়ী ঠিকানা বর্তমান ঠিকানা
আপনি যদি বাংলাদেশ দূতাবাসে জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে চান, তবে এটি নির্বাচন করুন

জন্ম নিন্ধন সংশোধন অনলাইনে কিভাবে করে

জন্মনিন্ধন সংশোধন করতে আপনার জানা প্রয়োজন যে কোন বিষয় গুলো মূলত আপনি করতে চাচ্ছেন। সাধারণত পিতার নাম, মাতার নাম, নিজের নামে ভুল থাকলে সেটাকে সংশোধন করে নিতে হয়। ২০২২ এর নীতিমালা অনুযায়ী সকলের জন্ম নিন্ধন কে ইংরেজিতে নাম প্রদান করতে হবে। অনলাইন এর মাধ্যমে সহজেই যাবতীয় কাজ গুলো করে ফেলা সম্ভব।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন কেন প্রয়োজন

জন্মনিন্ধন এর তথ্য অনুযাই ন্যাশনাল আইডি কার্ড নিবন্ধন করা হয়ে থাকে। জন্মনিবন্ধন এ কোনো প্রকার ভুল থাকলে সেটা ন্যাশনাল আইডি কার্ডের মাঝে ও চলে আসবে। জন্ম নিন্ধন ন্যাশনাল আইডি কার্ডের অপশন হিসেবে কাজ করে যতদিন না আপনার ন্যাশনাল আইডি কার্ড তৈরি করা হয়।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে যাচাই

অনলাইন এর মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করা অনেক বেশী সহজ। জন্ম নিবন্ধন অনলাইনের মাধ্যমে যাচাই করার জন্য আগে থেকেই আপনার জন্মনিবন্ধন অনলাইনে ইনপুট করা থাকতে হবে। অনলাইনে যদি আপনার জন্মনিবন্ধন না থাকে তাহলে কোনো প্রকার সংশোধন এর কাজ করতে পারবেন না। আপনি যদি জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে যাচাই করে দেখতে চান এই তাহলে জন্মনিবন্ধন কার্যালয়ের মূল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন কার্যালয়ের মূল ওয়েবসাইট লিংক এখানে ক্লিক করুন। 

যে কোনো ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে ঢোকার পরে উপরের ছবির মত একটি পেজ দেখতে পারবেন। এখানে ঢুকার পরেই জন্মৎনিবন্ধন যাচাই নামে একটি পপ আপ লেখা দেখতে পাবেন। উপরের একদম প্রথম খালি ঘরের মধ্যে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর ১৭ ডিজিট এর নাম্বার টি দিন।

অনেকের জন্মনিবন্ধন কার্ডে ১৭ ডিজিটের নাম্বার নেই ১৬ ডিজিট দেয়া আছে। পরবর্তী একটা ডিজিট ১-৯ পর্যন্ত দিয়ে চেষ্টা করে ১৭ ডিজিট বুদ্ধি করে বানিয়ে ফেলুন। দ্বিতীয় ফাকা ঘর টিতে আপনার জন্ম নিবন্ধন কার্ডে থাকা সঠিক জন্ম তারিখ, মাস, ও সাল দিন। এবার, ৩য় খালি ঘরটিতে উপরে দেয়া পিকচার এর ক্যাপচা টি পূরন করে “সার্চ” অপশনে ক্লিক করুন।

See also  প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার রেজাল্ট ২০২২ (১ম ধাপ) DPE result 2022 published pdf download

এবার আপনার জন্ম নিবন্ধন যদি পূর্বে থেকেই অনলাইনে সাবমিট করা থাকে আপনার জন্মনিবন্ধন এর সকল ইনফরমেশন গুলোকে দেখতে পারবেন। আপনি চাইলে এখান থেকে ডাউনলোড অপশনে ক্লিক করে জন্ম নিবন্ধন যাচাই এর কপিটি আপনার ফোনে সংরক্ষন করে রাখতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক Apps

 আপনি যদি ওয়েবসাইট থেকে জন্ম নিবন্ধন  চেক করার ঝামেলা পোহাতে না চান তবে আপনার জন্য ভালো একটি মাধ্যম হতে পারে জন্মনিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক Apps. প্লে স্টোর এর মাধ্যমে এপ টি আপনারা ফোনে ইন্সটল করে খুব সহজেই জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে যাচাই করে নিতে পারবেন।

এর জন্য সবার প্রথমে আপনাদের একটি এপ্স ইন্সটল করে নিতে হবে। এপ টি আপনারা প্লে স্টোরে পেয়ে যাবেন। প্লে স্টোরে গিয়ে সার্চ করুন ” জন্ম নিবন্ধন চেক” লিখে। অথবা এটাকে যদি আপনার ঝামেলা মনে হয় আপনার কাজ কে সহজ করে দিতে এখানে ক্লিক করে এপটি আপনার ফোনে ইন্সটল করে নিন।

এখান থেকে প্রথম বক্সে পূর্বের ন্যায় আপনার জন্ম নিবন্ধন কার্ড থেকে ১৭ ডিজিট এর নাম্বারটি দিয়ে দিতে হবে। ২য় খালি ঘরে জন্ম দিন, মাস ও সাল প্রেরণ কর‍তে হবে। এর পরের খালি ঘরে পাশে ছোট্র কিছু ম্যাথ ভ্যারিফেকশন দেখতে পাবেন। সেটা সঠিক ভাবে দিয়ে “অনুসন্ধান” বাটনে ক্লিক করে দিন। আপনাদের জন্মনিবন্ধন যদি অনলাইনে ইনপুট অবস্থায় থাকে তাহলে সরাসরি এপ থেকেই সকল প্রকার জন্ম নিবন্ধন এর তথ্য আপনাদের সামনে চলে আসবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম 

অনলাইন এর মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর জন্য উপরের দেয়া ধাপ গুলো অনুযায়ী সবার আগে চেক করে নিন জন্মনিবন্ধন এর তথ্য অনলাইনে রয়েছে কিনা। যদি অনলাইনে না থাকে তাহলে কোনো পরিবর্তন করতে পারবেন না। জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে হালনাগাদ করার জন্য প্রয়োজনে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে সহায়তা নিতে পারেন।

আর যদি ইতিমধ্যে আপনাদের জন্ম নিবন্ধন এর সকল তথ্য অনলাইনে হালনাগাদ হয়ে থাকে তাহলে নিচের দেয়া ধাপ গুলো অনুসরন করার মাধ্যমে খুব সহজেই জন্মনিবন্ধন সংশোধন করে নিতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম গুলোর জন্য নিচের দেয়া ধাপ অনুযায়ী কাজ করুন :-

১ম ধাপ – জন্ম নিবন্ধন অনলাইন এর মাধ্যমে সংশোধন করার জন্য সবার প্রথমে আপনাকে জন্মৎনিবন্ধন সংশোধন তথ্য আবেদন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। জন্মনিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যাওয়ার জন্য ” এখানে ” ক্লিক করুন। ওয়েবসাইটে ঢোকার পরে একটি ওয়েব পেজ দেখতে পাবেন।

২য় ধাপ – এবার উপরে ” জন্ম নিবন্ধন ” নামে একটি অপশন দেখতে পারবেন। সেখানে টাচ করলে একটি পপ আপ পেজে ” জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন ” অপশন শো হবে। (যদি আপনি ফোন থেকে কাজটি করেন তবে ” ম্যানু বার ” ক্লিক করে ” জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন ” অপশনে ক্লিক করে দিন। এর পরে একটি ওয়েব পেজ আপনাদের সামনে খুলবে।

৩য় ধাপ – এই ধাপে আপনাকে আপনার জন্মনিবন্ধন এর তথ্য খুজে বের করতে হবে। এর জন্য নিচের দিকে ২ টি ফাকা ঘর দেখতে পাবেন। ” জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ” এর ফাকা ঘরে আপনার জন্মনিবন্ধন কার্ড থেকে তার সঠিক নাম্বারটি লিখুন। ” জন্ম তারিখ ” অপশনের খাকি ঘরে আপনার সঠিক জন্ম তারিখ দিন যেটা আপনার জন্মনিবন্ধন কার্ডে দেয়া আছে। এর পরে ” অনুসন্ধান ” অপশনে ক্লিক করুন। এর পরে একটি পেজ ওপেন হবে।

৪র্থ ধাপ – এবারে আপনাকে জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর জন্য কিছু তথ্য সাবমিট করে দিতে হবে। ” দেশ ” অপশনে ” বাংলাদেশ ” সিলেক্ট করুন। এর পরে আপনার সঠিক বিভাগ, জেলা, সিটি করপোরেশন, ইউনিয়ন, অফিস এগুলো ক্রমান্বয়ে সিলেক্ট করতে থাকুন। অবশ্যই খেয়াল রাখবনে সেটা যেন সঠিক হয় এবং আপনার বাস স্থান অনুযায়ী সঠিক থাকে। পূর্বে দেয়া জন্ম নিবন্ধন কার্ডে যেভাবে তথ্য গুলো দেয়া রয়েছে ঠিক সেভাবে দিয়ে দিন। এর পরে পরবর্তী ধাপে ক্লিক করুন একটি পেজ দেখতে পাবেন।

৫ম ধাপ – এ পর্যায় একটি ফর্ম দেখতে পাবেন। এই ফর্ম টি সঠিক তথ্য দিয়ে পূরণ করে নিতে হবে। জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর জন্য সর্বোচ্চ চারবার আবেদন করতে পারবেন অনলাইনে। তাই খুব ভালো করে সতর্কতার সাথে প্রতিটা প্রসেস এর কাজ সম্পন্ন করে নিতে হবে। ফর্মে থাকা প্রতিটা বিষয় ভালো করে লক্ষ্য করে পূরণ করুন। এর পরে ” আরো তথ্য সংশোধন করুন ” এমন একটি অপশন পাবেন সেখানে ক্লিক করে দিন।

See also  প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত জরুরি নির্দেশনা ২০২২

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিন

৬ষ্ঠ ধাপ – এ পর্যায় আপনি জন্মনিবন্ধন এর কি পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন সেটা বাছাই করে সিলেক্ট করে দিতে হবে। জন্মনিবন্ধন তথ্য সংশাধনের কারণ হিসেবে ” ভুল ভাবে লিপিবদ্ধ হয়েছে ” এটিকে বেছে নিন । এর পরে জন্মতারিখ সিলেক্ট করুন যথারিতি দিন, মাস ও সাল ঠিক রেখে।

৭ম ধাপ – জন্ম নিবন্ধন সংশোধন অনলাইন এর জন্য এবারের ফর্ম টি ভালো করে পূরন করুন। আপনার বাস স্থানের ঠিকানা যেমন- দেশ, জেলা, বিভাগ, ইউনিয়ন পরিষদ, বাসার নাম্বার ইত্যাদি ফর্মে পূরণ করে দিন ।

স্থায়ী ঠিকানা টা সঠিক ভাবে দিবেন। অনেকেই আছেন যারা পূর্বে এক জেলায় বাস করলেও পরবর্তী সময়ে অন্য জেলায় স্থায়ী ভাবে বসবাস রত অবস্থায় রয়েছেন। এখন, পূর্বের জেলা টা না দিয়ে আপনি যে জেলায় বাস করছেন সেটার তথ্য গুলো দিবেন।

সব শেষে ” বর্তমান ঠিকানা ” দিন। যে খানে আপনি বর্তমানে রয়েছেন। যেহেতু জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর কার্ড আপনাকে অনলাইন এ আবেদন এর পর নিজ নিজ ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে তুলে নিতে হবে এটার জন্য এই বিষয় টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে সক্ষম।

৮ম ধাপ – উপরের দেয়া জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর সকল ধাপ গুলো যদি আপনি সফল ভাবে শেষ করেন এর পর আপনাকে পরিবর্তন করা জন্মনিবন্ধন টির জন্য আবেদন করতে হবে। আবেদন এর পর আপনাকে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ফি প্রদান করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর জন্য আবেদন করার পর নতুন সংশোধন কৃত আবেদন কপি টি ডাউনলোড করে নিতে হবে।

এখানে, আপনাকে কিছু ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে ফর্ম টি পূরণ করে দিতে হবে। আপনার জন্মনিবন্ধন যদি আপনি নিজে সংশোধন এর জন্য আবেদন করে থাকে তাহলে অপশন থেকে ” নিজে ” অপশন টি সিলেক্ট করে দিবেন। আবেদন কারীর নামের স্থলে যে, জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর জন্য আবেদন করবে তার নাম টি দিন।

আপনি যদি নিজে সংশোধন এর কাজ করেন তাহলে আপনার নাম টি দিয়ে দিন। এর পরের ঘরে আপনার বর্তমান ঠিকানা টি উল্লেখ করে দিন। এর পর আপনার সচল থাকা একটি ফোন নাম্বার দিয়ে দিন। আপনার যদি ই- মেইল এড্রেস থাকে তাহলে ই- মেইল এড্রেস ও দিতে পারবেন।

প্যেমেন্ট অপশন টি থেকে ” ফি আদায় ” অপশন টি কে বেছে নিন। এর পরে ” সাবমিট ” বাটনে ক্লিক করে দিন। জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর আবেদন টি সাবমিট হয়ে গেলে সংশোধন করা কপিটি ডাউনলোড করে নিন। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন এর কপিটি প্রিন্ট করে আপনার নিজস্ব ইউনিয়ন পরিষদে জমা দিয়ে আসুন।

আপাতাতো, আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর অনলাইন আবেদন এর কাজ শেষ। এর পরে শুধু জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ফি দেয়া বাকি। ফি টা আপনারা নতুন জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর কার্ড টি যখন ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে তুলে নিবেন তখন প্রদান করে দিলেও হয়ে যাবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন ফি

বাংলাদেশ সরকার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন করার জন্য কিছু ফি নির্ধারণ করে দিয়েছেন। এটা সংশোধন এর উপর নির্ভরশীল। আপনি যর বেশী সংশোধন করবেন ফি এর পরিমান ও তত বেশী বৃদ্ধি পাবে। জন্মনিবন্ধন সংশোধন আবেদন যেন সকল প্রকার লোকের জন্য সহজ তর হয় সে লক্ষ্যে, সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী ফি দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে আপনাকে সংশোধন কৃত জন্মনিবন্ধন কার্ড টি সংগ্রহ করে নিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন এর তথ্য অনলাইনে সংশোধন এর জন্য ৳ ১০০ টাকা ফি প্রদান কর‍তে হবে। পিতার নাম, মাতার নাম, নিজের নাম, ঠিকানা, ইত্যাদি পরিবর্তন করার জন্য ৳৫০ টাকা ফি ধার্য্য করা হয়। পিতার নাম ইংরেজি তে, মাতার নাম ইংরেজি তে, নিজের নাম ইংরেজি তে ইত্যাদি পরিবর্তন এর জন্য ৳৫০ টাকা ফি প্রদান করতে হবে।

See also  How to Earn Money Online in Bangladesh

ফি দেয়ার জন্য অনলাইনে আগে দিতে চাইলে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ব্যাবহার করে দিতে হবে। অথবা, জন্মনিবন্ধন সংশোধন আবেদন করার পর কিছু দিন সময় লাগে সংশোধন কৃত জন্মনিবন্ধন কার্ড টি ইউনিয়ন পরিষদে আসতে। জন্মনিবন্ধন কার্ড টি এসে গেলে তখন আপনার যাবতীয় ফি দিয়ে নতুন কার্ড টি নিতে পারবেন।

পিতা – মাতার নাম সংশোধন করার নিয়ম

পিতা ও মাতার নাম জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর জন্য অনেক বেশী জরুরি। আপনার পিতা মাতার নাম যদি পুর্বে সংশোধন না হয়ে থাকে তবে আপনার সংশোধন করা জন্মনিবন্ধন টি কাজে আসবে না। তাই আগে ভালো ভাবে দেখে নিন তাদের নাম গুলো সঠিক ভাবে রয়েছে কি না। পিতা – মাতার নাম পরিবর্তন এর জন্য নিচের নিয়ম গুলো মনে রাখা আবশ্যক : –

১ – আপনার পিতা – মাতার যদি আগে থেকেই জন্মনিবন্ধন নাম্বার থাকে তাদের নিবন্ধন নাম্বার দিয়ে আগে তাদের নাম গুলো সংশোধন করে নিতে হবে। পরবর্তী সময়ে আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ক্ষেত্রে যদি পিতা ও মাতার নাম্বার ব্যাবহার করেন তাহলে তাদের নাম রয়ে যাবে। তবে পিতা – মাতার নাম যদি সংশোধন করানো হয় তাহলে আপনার সংশোধন কৃত জন্মনিবন্ধন এর সাথে তাদের গুলো যোগ করে পরিবর্তন করা হবে।

২ – আপনার পিতা ও মাতার যদি জন্মনিবন্ধন নাম্বার না থাকে আর আপনার জন্ম সাল যদি ০১/০১/২০০১ এর পূর্বে হয়ে থাকে তাহলে আপনার জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর সময়ে পিতা ও মাতার নাম সংশোধন করে নিতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে আপনার পিতা ও মাতা যদি মৃত হয়ে থাকে তাহলে কোনো প্রকার দলিল দিয়ে সেটা প্রমান করতে হবে না।

 ৩ – আর যদি আপনার পিতা ও মাতা মৃত হয়ে এবং আপনার জন্ম সাল যদি ০১/০১/২০০১ এর পরে হয়, তাহলে আপনার জন্মনিবন্ধন সংশোধন এর সময় তাদের নাম পরিবর্তন করতে পারবেন। তবে আপনাকে আপনার পিতা ও মাতার ডেথ সার্টিফিকেট প্রমান পত্র হিসেবে দেখাতে হবে।

 সোর্স – (Bdris.Gov.Bd) জাতীয় জন্মনিবন্ধন সংশোধন আবেদন অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন নিয়ে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

জন্মনিবন্ধন সংশোধন নিয়ে অনেকের কিছু কমন প্রশ্ন থাকে যেগুলো নিচে দিলাম –

১- জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে কি করবো?

জন্মনিবন্ধন কার্ড হারিয়ে গেলে আপনার যদি এন আইডি থাকে তাহলে খুব বেশী সমস্যায় পড়তে হবে না। তবে হারানোর সাথে সাথে সেটা সংগ্রহ করে রাখা নিতান্তই বুদ্ধিমানের কাজ। জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে আপনার স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে জানাতে হবে। সেখানে তাদের ডাটাবেজে আপনার সকল তথ্য সংরক্ষন করা থাকে সেখান থেকে নতুন একটি কপি আপনাকে তারা দিয়ে দিবে। আর যদি ডাটাবেজে পাওয়া না যায় পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে তারা অবহিত করবে।

 ২- জন্মনিবন্ধন অনলাইন কপি কিভাবে ডাউনলোড করবো?জন্মনিবন্ধন এর অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে, জন্মনিবন্ধন অনলাইনে রয়েছে কিনা চেক করতে গেলেই হবে। সেখান জন্ম তারিখ ও জন্মনিবন্ধন কার্ড নাম্বার দিয়ে অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন। বিস্তারিত সর্ব প্রথমে বলে দেয়া আছে।

শেষ কথা

জন্ম নিবন্ধন প্রতিটা মানুষের একটি জাতীয় পরিচয়। প্রতিটা মানুষের জন্মের শুরু তে জন্ম সনদ হালনাগাদ করা হয়ে থাকে। ব্যাক্তিগত জীবনে সিকল প্রকার সরকারি কিংবা বেসরকারি কাজে এটি প্রয়োজন। আপনার বা আপনার পরিবার এর কারো যদি জন্ম নিবন্ধন এ ভুল থাকে পোষ্টে দেখানো উপায় অনুযায়ী ঠিক করে নিন।

আড়ও পড়ুন

প্রাথমিকে আবারও ৩০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিবে

এসকেএফ ফার্মাসিউটিক্যালস নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২ 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২ (পদ-৭৬৫ টি)

চাকরির ডাক পত্রিকা ০১ জুলাই ২০২২ শুক্রবার

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

একশনএইড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

জাকস ফাউন্ডেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

সমবায় ব্যাংক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

সকল স্কুল ও কলেজ নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

চলমান সকল সরকারি-বেসরকারি চাকরির খবর নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

বাংলাদেশ সুগারক্রপ রিসার্চ ইনস্টিটিউট নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

সিটি ব্যাংক লিমিটেড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

পল্লী বিদ্যুৎ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়োগ ২০২২

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also
Close
Back to top button