StudyTechnology

নিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internet

How to stay safe on the Internet

নিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে
নিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে

আপনি জানলে হয়তো অবাক হবেন বাংলাদেশে এখন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা সরকারি হিসাবে সাত কোটিরও বেশি। ইন্টারনেটের সুবিধা আমাদের জীবন ধারাকে সহজ করেছে ঠিকই, কিন্তু এর কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। ইন্টারনেট ব্যবহারে ঝুঁকির বিষয়গুলো সম্পর্কে না জানার কারণে অনেকেই আজকাল নানা সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন। সত্যি বলতে আজকের দিনে মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য সবচেয়ে মূল্যবান। গুঞ্জন রয়েছে আমেরিকার পার্লামেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জয়ের পিছনে ব্যাক্তিগত তথ্য চুরির এক অনবদ্য অবদান রয়েছে। ভেবেই দেখুন আপনার ব্যাক্তিগত তথ্য কতো টা মূল্যবান !

সেই ভিত্তিতেই প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সফটওয়্যার, অ্যাপ তৈরি করে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে, আর এগুলোর মাধ্যমে কখনো সরাসরি, কখনো কৌশলে আবার কখনো প্রতারণার মাধ্যমে তথ্য চুরির কাজটি করা হচ্ছে। আর এই কাজটি করছে ইন্টারনেটভিত্তিক প্রায় সব প্রতিষ্ঠানই। সম্প্রতি দেশের অন্যতম শীর্ষ রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম পাঠাও পর্যন্ত তার অ্যাপসের মাধ্যমে ব্যবহার কারীদের সংবেদনশীল তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করেছে। যা কিনা জাতীয় নিরাপত্তার জন্যও হুমকি স্বরুপ হয়ে দাড়িয়েছে। এদেশের সাধারণ মানুষ কেবলমাত্র ইন্টারনেটের বৈশিষ্ট্য দেখেই মুগ্ধ, ভেতরে কী চলছে তা জানার চেষ্টাটুকুও কেউ করেনা।

আপনি যখন কোন অ্যাপ ইন্সটল করেন তখন আপনার ব্যাক্তিগত তথ্যগুলো কী কী কাজে ব্যবহার করা হবে, তার বর্ণনা দেয়া থাকে ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নীতিমালায়। এই ব্যাখ্যার সঙ্গে একমত হলেই কেবল সেখানে ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ করা এবং অ্যাপটি ব্যবহার করা উচিত। তবে বেশির ভাগ ব্যবহারকারী এই দীর্ঘ নীতিমালা পড়েন না এবং না পড়েই অনুমতি দিয়ে দেন। যার ফলে  ইন্টারনেট ভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলো খুব সহজেই আপনার মহা মূল্যবান ব্যাক্তিগত তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে পারে। এই ছোটখাটো ব্যাপারগুলোতে সবার সাবধান হওয়া উচিত। বিশ্বাসযোগ্য ডেভেলপার হলে এক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় দেয়া যায়,

কিন্তু আপনি যখন অপরিচিত কোনো ডেভেলপারের অ্যাপ ব্যবহার করবেন, তখন এই ছোট ব্যাপারে দৃষ্টি না দিলেই নয়। যাই হোক, ইন্টারনেটের নিরাপত্তা রক্ষার্থে বেশ কিছু ব্যাপারে সচেতন থাকলেই যথেষ্ট, সেই সচেতন হওয়ার ব্যাপারগুলো নিয়েই চলুন জানা যাক আজ।

অ্যান্টিভাইরাস এবং ফায়ারওয়াল

আপনার কম্পিউটারের জন্য অ্যান্টিভাইরাস সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা ছাড়াও, আপনি একটি মোবাইল ব্রাউজারে অ্যান্টিভাইরাস এক্সটেনশনগুলি ব্যবহার করতে পারেন একটি সাইটের নিরাপত্তা পরীক্ষা করতে এবং পপ-আপ বিজ্ঞাপনগুলি প্রতিরোধ করতে যাতে ভাইরাস থাকতে পারে৷ তাছাড়া, আপনার কম্পিউটার বা ফোনে অননুমোদিত অ্যাক্সেস রোধ করার জন্য ফায়ারওয়াল সেট আপ করা একটি কার্যকর উপায়। যদিও কিছু ডিভাইস প্রাক-ইনস্টল করা ফায়ারওয়ালের সাথে আসে, যেগুলি নেই তাদের জন্য, বেশিরভাগ অ্যান্টিভাইরাস প্যাকেজ ফায়ারওয়াল সুরক্ষা প্রদান করে।

“মোবাইল ডিভাইসগুলিতে কম্পিউটারের জন্য উপলব্ধ অনেকগুলি অ্যান্টিভাইরাস বিকল্পের অভাব রয়েছে। আমাদের ফোনে ভাইরাসগুলি যাতে প্রবেশ করা না হয় তার জন্য মোবাইল ডাউনলোডের বিষয়ে নির্বাচন করা ভাল,” সুমন আহমেদের মতে৷

আপনার ডাউনলোড সুরক্ষিত

আপনার ডিভাইসে ভাইরাস প্রবেশ করার জন্য ডাউনলোডগুলি হল সবচেয়ে সাধারণ রুট৷ অ্যাপল অ্যাপ স্টোর বা গুগল প্লে স্টোরের মতো অফিসিয়াল সোর্স থেকে প্রাপ্ত অ্যাপগুলি থার্ড-পার্টি সাইট থেকে যেকোনো কিছু ডাউনলোড করার চেয়ে নিরাপদ। যেকোনো কিছু ইনস্টল করার আগে, অনুমতি, শর্তাবলী এবং শর্তাবলীর মধ্য দিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করুন- যা নিঃসন্দেহে একটি ক্লান্তিকর প্রক্রিয়া হবে, কিন্তু আপনি আপনার ডিভাইসে কী আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন তা বোঝার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

ইতিহাস এবং কুকিজ সাফ করুন

See also  বাংলাদেশ এর সংবিধান থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর

শুধুমাত্র একটি বিরক্তিকর “এই ওয়েবসাইট কুকি ব্যবহার করে” পপ-আপ দ্বারা বিষয়বস্তু অবরুদ্ধ করার জন্য একটি ওয়েবসাইটে স্ক্রোল করার চেষ্টা করছেন? এই কুকিগুলি হল পাঠ্য ফাইল যা আপনার পছন্দগুলি রেকর্ড করে, ওয়েবসাইটগুলিকে (সাধারণত) আপনাকে আরও প্রাসঙ্গিক বিজ্ঞাপন দেখানোর অনুমতি দেয়৷ অন্যদিকে, হ্যাকাররা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য পেতে এই কুকিগুলিকে কাজে লাগাতে পারে। এইভাবে, আপনার ব্রাউজারের ইতিহাস এবং প্রতি মাসে কুকিজ সাফ করা নিশ্চিত করে যে সেগুলিতে সঞ্চিত যে কোনও ট্র্যাকযোগ্য ব্যক্তিগত তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে।

মোবাইল ডিভাইস সুরক্ষিত

স্মার্টফোনগুলি হল ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করার জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ডিভাইস, সেগুলিকে নিরাপত্তা লঙ্ঘনের প্রধান লক্ষ্য করে তোলে৷ আপনার মোবাইল নিরাপত্তা বাড়ানোর জন্য কিছু সাধারণ টিপসের মধ্যে রয়েছে- ডিভাইস আনলক করতে বায়োমেট্রিক্স, ফেসিয়াল রিকগনিশন বা কঠিন পাসকোড ব্যবহার করা, OS আপডেট করা, নিয়মিত মোবাইল ব্যাকআপ করা এবং ক্ষতি বা চুরি রোধ করতে ইন-বিল্ট ডিভাইস ট্র্যাকিং পরিষেবা ব্যবহার করা। স্মার্টফোনগুলি এখন এনক্রিপশন সফ্টওয়্যার সহ আসে যা ডেটা স্ক্র্যাম্বল করে যাতে অননুমোদিত পক্ষগুলি এটি অ্যাক্সেস করতে না পারে৷

আপনার ডিভাইসটি এনক্রিপ্ট করা আছে কিনা তা দেখতে, ডিভাইসের সেটিংসের অধীনে নিরাপত্তা ট্যাবটি পরীক্ষা করুন। যদি আপনার ডিভাইসটি বাক্সের বাইরে এনক্রিপ্ট করা না হয় তবে আরও নিরাপত্তার জন্য এনক্রিপশন অ্যাপগুলি যাচাইকৃত উত্স থেকে ডাউনলোড করা যেতে পারে। নিরাপত্তার একটি অতিরিক্ত স্তরের জন্য, ভিড়ের জায়গায় ব্লুটুথ সেটিংসকে “অ-আবিষ্কারযোগ্য” তে টগল করুন।

অনলাইন পেমেন্ট করা

আপনার সমস্ত অনলাইন শপিং শোষণের জন্য ভার্চুয়াল পেমেন্ট হ্যাকারদের জন্য আপনার ব্যাঙ্কিং তথ্য পাওয়ার জন্য একটি প্রধান সুযোগ হতে পারে। একটি পেমেন্ট গেটওয়ে সুরক্ষিত কিনা তা দেখতে, ওয়েবসাইটের ঠিকানা ছাড়া আর তাকাবেন না- যেটি “https” দিয়ে শুরু হওয়া উচিত (শুধুমাত্র “http” এর পরিবর্তে) এবং URL ক্ষেত্রটি একটি প্যাডলক আইকন প্রদর্শন করে৷ এছাড়াও, ভুল বানান বা খারাপ ব্যাকরণ সহ ঠিকানাগুলির জন্য নজর রাখুন- যা সম্মানিত সাইটের নকঅফ হতে পারে। বিপজ্জনক ওয়েবসাইট পরিদর্শন এড়াতে, নিরাপদ অনুসন্ধান ব্রাউজার প্লাগ-ইন ইনস্টল করুন.

নিয়মিত নিরাপত্তা সেটিংস পর্যালোচনা করুন

আমাদের সমস্ত অনলাইন অ্যাকাউন্টের জন্য, পর্যায়ক্রমে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করা এবং নিরাপত্তা পরীক্ষা চালানো গুরুত্বপূর্ণ। অনলাইন নিরাপত্তা হুমকি যেমন বিকশিত হতে থাকে, তেমনি আপনার ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থাগুলিও উচিৎ। একটি অ্যাকাউন্টের জন্য নিরাপত্তা সেটিংস পর্যালোচনা করার সময়, লগ-ইন বিজ্ঞপ্তি সক্রিয় করতে এবং মাল্টি-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণের জন্য নিরাপত্তা প্রশ্ন/পরিচয় যাচাই পদ্ধতি পরিবর্তন করতে ভুলবেন না।

সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলির জন্য, নিয়মিতভাবে গোপনীয়তা সেটিংস পর্যালোচনা করুন (বিশেষ করে আপনার প্রোফাইল সম্পাদনা করার পরে), জনসাধারণের কাছে কোন তথ্য উপলব্ধ এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান করা হয়েছে৷

নিয়মিত ডেটা ব্যাকআপ করুন

অনলাইন হুমকির সাম্প্রতিক প্রবণতা “র্যানসমওয়্যার”-এর বৃদ্ধি দেখতে পাচ্ছে – যেখানে হ্যাকাররা মুক্তিপণ প্রদান না করা পর্যন্ত ব্যবহারকারীদের তাদের ফাইলগুলি থেকে লক করার হুমকি দেয়৷ ক্লাউড স্টোরেজ বা একটি বাহ্যিক হার্ড ড্রাইভে আপনার ডিভাইসের ডেটা ব্যাক আপ করার প্রায়শই উপেক্ষা করা অভ্যাস এই ধরনের অনলাইন হুমকির কাছাকাছি একটি উপায় প্রদান করতে পারে। এছাড়াও, আপনার ডিভাইস ম্যালওয়্যার দ্বারা সংক্রমিত হলেও, নিয়মিত ব্যাকআপ সবসময় আপনার মূল্যবান ডেটার একটি কপি সংরক্ষণ করবে।

গোপনীয়তা নীতি

যারা তাদের ডিজিটাল নিরাপত্তার জন্য পুরো নয় গজ যেতে চায় তাদের জন্য, অ্যাপস, গেমস, সফ্টওয়্যার এবং ওয়েবসাইটগুলির সাথে ব্যাপকভাবে উপেক্ষা করা “গোপনীয়তা নীতি” ব্যাখ্যা করতে পারে যে তারা ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে সংগৃহীত তথ্য কীভাবে সুরক্ষিত এবং ব্যবহার করে।

ব্রাউজার নির্বাচনে সতর্কতা

ইন্টারনেট ভিত্তিক তথ্য ও সেবা পাওয়ার জন্য যেহেতু ওয়েব ব্রাউজার অধিক ব্যবহার করা হয় তাই ওয়েব ব্রাউজার এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং নিরাপদে ব্যবহার করা অতি জরুরী। কিন্তু কম্পিউটার এর অপারেটিং সিস্টেমের সাথে যে ওয়েব ব্রাউজার গতানুগতিক ভাবে দেয়া থাকে অথবা আমরা যে ওয়েব ব্রাউজার ইনস্টল করি, সাধারণত তাতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা থাকে না। গুগল ক্রোম বা ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজারের পাশাপাশি আরও বহু ব্রাউজিং সফটওয়্যার পাওয়া যায়। সেগুলো দেখতে আকর্ষণীয় হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই ওয়েব ব্রাউজার গুলোই আপনার সব তথ্য হাতিয়ে নেয়। তাই ব্রাউজার নির্বাচনের সময় সতর্ক হোন।

ফ্রি প্লেস্টোর অ্যাপ ব্যাবহারে সতর্কতা

অনেকেই প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করেন ফ্রি অ্যাপস। এই ধরণের অ্যাপগুলির ৯০ শতাংশই গুগলের সঙ্গে শেয়ার করে থাকে ইউজারদের তথ্য। যেটির জন্য অবশ্য নেওয়া হয় না ইউজারদের সম্মতি৷ যদিও বিষয়টিকে সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করেছে গুগল। তথ্য শেয়ারিং কান্ডের সঙ্গে শুধুমাত্র গুগলই জড়িত নয়৷ ৪৩ শতাংশের মত অ্যাপ ফেসবুকের সঙ্গে তথ্য শেয়ার করে থাকে। বেশ কিছু অ্যাপস রয়েছে যেগুলি ট্যুইটার, আমাজন, মাইক্রোসফটের মত নামিদামি সংস্থাগুলির সঙ্গে ইউজারদের গোপন তথ্য শেয়ার করে থাকে। তথ্য চুরি ও শেয়ার করার ঘটনা প্রথম নয়। এর আগেও একইভাবে তথ্য চুরি হয়েছে৷ ইদানিং, সংবাদ মাধ্যমের দৌলতে সামনে আসছে বিষয়টি। আর, সেখান থেকেই নিজের তথ্য কতটা সুরক্ষিত সে বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত হচ্ছেন ইউজাররা। তাই, প্লে-স্টোর থেকে ফ্রী অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে সর্তক থাকুন।

See also  ৫ম শ্রেণির বিজ্ঞান মডেল প্রশ্ন - 2022 (pec science model question 2022)

পাবলিক ওয়াইফাই ব্যাবহারে সতর্কতা

পাবলিক ওয়াই-ফাই সংযোগ ব্যবহারে সতর্ক হোন। আমরা অনেকেই এমন যে, কোথাও পাবলিক ওয়াই-ফাই পেলেই সাথে সাথে স্মার্টফোনকে সংযুক্ত করে ফেলি। এই অভ্যাসটি  পরিবর্তন করুন অতিসত্ত্বর। আর তা না হলে এমন পাবলিক ওয়াই-ফাই থেকে হ্যাকিং বা ম্যালওয়্যার আক্রান্তের শিকার হতে পারেন আপনিও। সাইবার অপরাধীদের অনেকে ফ্রি এমন সংযোগের মাধ্যমে হ্যাকিং বা ভাইরাস ছাড়ানোর কাজটি করে থাকে। তাই অজানা কোনো ওয়াই-ফাই সংযোগের সঙ্গে ফোন যুক্ত করা উচিত নয়।

ফেসবুক থার্ডপার্টি অ্যাপ ব্যাবহারে সতর্কতা

‘আপনি মেয়ে হলে দেখতে কেমন হতেন ?’, ‘৫০ বছর পর আপনাকে কেমন দেখাবে ?’ এমন নামে প্রতিদিনই নতুন নতুন অ্যাপ প্রকাশ পায় ফেসবুকে। আমরা অনেকেই অ্যাপটি নির্ভরযোগ্য নয় জেনেও নিকছ আনন্দের জন্য অ্যাপটিতে প্রবেশ করি। শুধু প্রবেশই করিনা টাইমলাইনে শেয়ার করে বন্ধু তালিকার সবাইকেও দেখার সুযোগ করে দেই। বন্ধু তালিকারও অনেকেই নিকছ আনন্দের জন্য অ্যাপটিতে প্রবেশ করেন। এসব অ্যাপ তৈরির একমাত্র উদ্দেশ্য হলো ব্যবহারকারীর তথ্য হাতিয়ে নেওয়া। আর তাই অ্যাপে বলা হয়, আপনি যত বেশি তথ্য সংযোজন করবেন, এই ভবিষ্যদ্বাণী তত বেশি নির্ভুল হবে। সেই আশাতে আমরা আরও তথ্য সংযোজনের চেষ্টা করে থাকি। যার মাধ্যমে এসব অ্যাপ হাতিয়ে নেয় আপনার মহা মূল্যবান ব্যাক্তিগত তথ্য। তাই এসব ফেসবুক অ্যাপে প্রবেশ থকে নিজেকে বিরত থাকুন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অ্যাকাউন্ট হ্যাকিং

 আমরা বিপুল পরিমাণ তথ্য ছড়িয়ে দিই ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। কিন্তু আমরা জানিও না আমাদের ব্যাক্তিগত তথ্য চুরি করার জন্য প্রতিনিয়তই চেষ্টা করে যাচ্ছে বহুজন। তাই প্রায়ই অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ার ঘটনা ঘটে থাকে। আপনার মনে প্রশ্ন আসতেই পারে হ্যাক হওয়া এসব তথ্য কী কাজে লাগবে ?

যুক্তি বিশ্লেষকেরা বলছেন, ফেসবুক থেকে হ্যাকড হওয়া তথ্য খুবই মূল্যবান। ফেসবুক হ্যাক করে তথ্য হাতিয়ে নিতে পারলে তা থেকে অর্থ আয় করে সাইবার দুর্বৃত্তরা। এসব তথ্য তারা ডার্ক ওয়েবে বিক্রি করে দেয়।

বিশেষ কিছু সফটওয়্যারের মাধ্যমে এ ধরনের ডার্ক ওয়েবে ঢুকে ওই তথ্য তারা কেনাবেচা করে। নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলেন, ফেসবুক থেকে চুরি করা তথ্য কাজে লাগিয়ে পরিচয় প্রতারণা (আইডেনটিটি থেফট) বা ব্ল্যাকমেলের মতো ঘটনা ঘটাতে পারে দুর্বৃত্তরা।

ডার্ক ওয়েবে বিটকয়েনের মতো ভার্চুয়াল মুদ্রায় বিক্রি হয় এসব অ্যাকাউন্টের তথ্য। তথ্যের গুরুত্বের ওপর নির্ভর করে একেকটি অ্যাকাউন্ট বিক্রি হয় ৩ থেকে ১২ মার্কিন ডলার দামে। ফেসবুক থেকে যে পরিমাণ তথ্য হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে, তা এককভাবে বিক্রি করলে এর দাম হতে পারে ৬০ কোটি মার্কিন ডলারের কাছাকাছি।

যুক্তরাষ্ট্রের সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সনিকওয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিল কনার বলেন, ডার্ক ওয়েবে ব্যক্তিগত তথ্য খুবই মূল্যবান। কোনো প্রতিষ্ঠান বা রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে এসব তথ্য নেওয়া হলে তা আরও গুরুত্বপূর্ণ।

যুক্তরাজ্যের মানি গুরু নামের একটি প্রতিষ্ঠানের ভাষ্য, হ্যাকিংয়ের ঘটনার পর অনেক তথ্য ডার্ক ওয়েবে পাওয়া যায়। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এসব তথ্য কিনে তা বিজ্ঞাপন দেখানোর কাজে ব্যবহার করে থাকে।

আপনার সফ্টওয়্যার আপডেট রাখুন

সেই বিরক্তিকর সফ্টওয়্যার আপডেটের অনুরোধ যা আপনি বন্ধ করে চলেছেন তাতে আপনার ডিভাইস বা OS এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা আপডেট থাকতে পারে। সফ্টওয়্যারের সর্বশেষ সংস্করণের সাথে আপ-টু-ডেট থাকা আপনার ডিভাইসের নিরাপত্তায় চিহ্নিত গর্তগুলিকে প্যাচ করে- ক্রমাগত পরিবর্তনশীল হুমকির বিরুদ্ধে সর্বোত্তম সম্ভাব্য সুরক্ষা প্রদান করে। সাম্প্রতিক আপডেটগুলি মুক্তি পাওয়ার সাথে সাথে পেতে, কেবলমাত্র আপনার ডিভাইসের সেটিংসে স্বয়ংক্রিয় আপডেটগুলি সক্ষম করুন৷

শক্তিশালী পাসওয়ার্ড, ভালো নিরাপত্তা

যদিও একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা সুস্পষ্ট মনে হতে পারে, তবে একাধিক অ্যাকাউন্টে পাসওয়ার্ড অনুমান করা সহজ বা একই একটি সাধারণ অভ্যাস। শক্তিশালী পাসওয়ার্ড সেট করার জন্য অনেক সাধারণ নির্দেশিকা রয়েছে, যেমন ছোট এবং বড় হাতের উভয় অক্ষর থাকা, সংখ্যা বা চিহ্ন ব্যবহার করা ইত্যাদি। যদি মনে রাখা সহজ কিন্তু ক্র্যাক করা কঠিন পাসওয়ার্ড সেট করা খুব বেশি অসুবিধার হয়, তাহলে একটি পাসওয়ার্ড ব্যবস্থাপনা টুল ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। যেটি জটিল পাসওয়ার্ড তৈরি করে সেইসাথে সেগুলি আপনার জন্য সংরক্ষণ করে। ব্যবহারের জন্য অনেক বিনামূল্যের পাসওয়ার্ড ম্যানেজমেন্ট টুল রয়েছে, যেমন LastPass, Avira Password Manager, RoboForm ইত্যাদি।

See also  এসএসসি ইংরেজি ২য় পত্র প্রশ্ন ২০২২ (ssc english 2nd paper model test 2022)

মাল্টিফ্যাক্টর প্রমাণীকরণ সহ স্তরযুক্ত নিরাপত্তা

মাল্টি-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণ অতিরিক্ত তথ্যের জন্য জিজ্ঞাসা করে একটি অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বাড়ায়, যেমন এসএমএস, নিরাপত্তা প্রশ্ন বা বায়োমেট্রিক্সের মাধ্যমে পাঠানো কোডগুলি লগ ইন করার অনুমোদনের জন্য। এই পরিষেবাটি বেশিরভাগ ইমেল প্রদানকারী এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের জন্য উপলব্ধ। একটি ওয়েবসাইট বহু-পদক্ষেপ প্রমাণীকরণ সমর্থন করে কিনা তা দেখতে, সাইটের সেটিংস পৃষ্ঠাটি দেখুন৷ যদিও অতিরিক্ত পদক্ষেপগুলি অসুবিধাজনক বলে মনে হতে পারে, আপনার ডেটা শুধুমাত্র একটি পাসওয়ার্ডের চেয়ে অনেক বেশি নিরাপদ হবে৷ ফাইবার অ্যাট হোমের সিইও সুমন আহমেদ সাবির বলেছেন, “একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ডের চেয়ে বেশি, নিরাপত্তার যোগ করা স্তরগুলির সাথে মাল্টি-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণ নিরাপদ”

হিসাব ব্যবস্থাপনা

আমাদের বর্ধিত অনলাইন উপস্থিতি আমরা ইন্টারনেট জুড়ে ব্যবহার করা অ্যাকাউন্টের সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে আসে। এই সমস্ত অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করা আমাদের ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করার একটি মৌলিক পদক্ষেপ।

প্রথমত, যে কোনও অ্যাকাউন্ট যা আর ব্যবহার করা হচ্ছে না তা মুছে ফেলা উচিত। দ্বিতীয়ত, ব্যবহার করার পর অ্যাকাউন্ট থেকে লগ আউট করাই ভালো- সেটা সোশ্যাল মিডিয়া, ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম বা সংবেদনশীল তথ্য (যেমন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বা ক্রেডিট কার্ডের তথ্য) ধারণ করা সাইটগুলিতেই হোক। যেহেতু এই ওয়েবসাইটগুলিতে লগ ইন করা আপনার ব্রাউজারে কুকি তৈরি করে (যা চুরি হয়ে গেলে, আপনার অ্যাকাউন্টের সাথে আপস করতে পারে), লগ আউট করা সবচেয়ে নিরাপদ। পাবলিক কম্পিউটার বা নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার সময় ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে লগ আউট করাও গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যক্তিগত ডিভাইসগুলির জন্য, ইমেল অ্যাকাউন্ট বা সোশ্যাল মিডিয়ায় লগ ইন থাকা সাধারণত নিরাপদ, যতক্ষণ না ডিভাইসটি নিজেই পিন বা পাসওয়ার্ড দিয়ে সুরক্ষিতভাবে লক করা থাকে। সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলির জন্য, অপরিচিত ব্যক্তিদের আপনার ব্যক্তিগত তথ্য আটকে রাখতে প্রোফাইলের দৃশ্যমানতা এবং গোপনীয়তার স্তরগুলি পর্যালোচনা করা গুরুত্বপূর্ণ৷ উপরন্তু, গোপনীয়তা সেটিংসে ট্যাগ পর্যালোচনা চালু করা আপনার অনুমোদন ছাড়াই অবাঞ্ছিত/সম্ভাব্য ক্ষতিকর পোস্টে ট্যাগ হওয়ার ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।

নেটওয়ার্ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

ওপেন নেটওয়ার্ক, যেমন পাবলিক Wi-Fi হটস্পট আপনাকে সংযোগের নিরাপত্তার উপর সরাসরি কোনো নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই ছেড়ে দেয়। যদিও এই জাতীয় নেটওয়ার্কগুলির সাথে সংযোগ না করাই ভাল, যদি এটি অনিবার্য হয় তবে একটি সুরক্ষিত VPN (ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক) ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। একটি VPN আপনার ডিভাইস এবং একটি ইন্টারনেট সার্ভারের মধ্যে একটি নিরাপদ নেটওয়ার্ক সংযোগ স্থাপন করে, নিশ্চিত করে যে কেউ আদান-প্রদান করা তথ্য নিরীক্ষণ বা পড়তে পারে না। সংবেদনশীল তথ্য যেমন- ঠিকানা বা ব্যাঙ্কের বিবরণ শেয়ার করার জন্য, নিশ্চিত করুন যে আপনি একটি সুরক্ষিত ব্যক্তিগত নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত আছেন।

 আজ আর নয়।লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না।

নিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internetনিরাপদ থাকুন ইন্টারনেটে। How to stay safe on the Internet

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button